ঋণের গ্যারান্টার হওয়ার আগে কী কী দেখবেন

ঋণের গ্যারান্টার হওয়া মানে ঋণ পরিশোধের দায়িত্ব নিতে রাজি হওয়া। ঋণগ্রহীতা তা পরিশোধ করতে না পারলে জামিনদারকে ঋণ পরিশোধ করতে হতে পারে।

অজয়ের সময় ভাল যাচ্ছে না। তিনি তাঁর এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর ঋণের গ্যারান্টার হয়ে এখন আফসোস করছেন। আসলে, তাঁর বন্ধুর একটা লোন দরকার ছিল, কিন্তু তাঁর ক্রেডিট হিস্ট্রি এবং ক্রেডিট স্কোর খারাপ। ফলে কোন ব্যাঙ্কই তাঁকে ঋণ দিতে রাজি ছিল না। বন্ধুর এই বিপদে অজয় ঋণের গ্যারান্টার হয়ে বন্ধুকে ঋণ পাইয়ে দিতে সাহায্য করেন। কিন্তু এখন তাঁর বন্ধু ওই ঋণ পরিশোধ করতে পারছেন না। যেহেতু ওই ব্যক্তি ঋণখেলাপি হয়ে গিয়েছেন সেই কারণে ব্যাঙ্ক এখন অজয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে ঋণ ফেরতের জন্য চাপ দিচ্ছে।
আপনি কোনও ঋণের গ্যারান্টার হওয়ার আগে তা নিয়ে ভাল করে সবদিক দেখে তারপরেই সিদ্ধান্ত নিন। লোন গ্যারান্টারের ভূমিকা এবং দায়িত্ব কী, তা নিয়ে স্পষ্ট ধারণা থাকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। একজন গ্যারান্টারের ভূমিকা ঠিক কী, আসুন এই ভিডিওতে আমরা তা বুঝতে চেষ্টা করি।

ঋণের গ্যারান্টার হওয়া মানে ঋণ পরিশোধের দায়িত্ব নিতে রাজি হওয়া। ঋণগ্রহীতা তা পরিশোধ করতে না পারলে জামিনদারকে ঋণ পরিশোধ করতে হতে পারে। সুতরাং, ঋণ পরিশোধের জন্য গ্যারান্টার সমানভাবে দায়ী। আপনি যদি কোনও ঋণের গ্যারান্টার হন। তখন ব্যাঙ্ক আপনাকে ঋণ গ্রহণকারী হিসেবে বিবেচনা করে। গ্যারান্টার সম্পর্কে প্রতিটি ব্যাঙ্কের বিভিন্ন নিয়ম ও শর্ত রয়েছে। তবে গ্যারান্টার হওয়ার জন্য আপনার ভাল CIBIL স্কোর থাকা জরুরী।

ক্রেডিট স্কোর একজন ব্যক্তির আর্থিক আচরণকে প্রতিফলিত করে। আপনি যদি একটি ঋণের গ্যারান্টার হন এবং একটি নতুন ঋণের জন্য আবেদন করেন তাহলে ব্যাঙ্ক আপনার গ্যারান্টার হওয়া ঋণের পরিমাণ নিয়ে বিবেচনা করবে। এটি আপনার ঋণের যোগ্যতাকে প্রভাবিত করে অর্থাৎ আপনি কতটা ঋণ পেতে পারেন তা নির্ধারণ করে থাকে। এছাড়াও, আপনি যে ঋণে গ্যারান্টার হবেন, সেই ঋণগ্রহীতা যদি মাসিক কিস্তি না দিতে পারেন বা অনিয়মিতভাবে মাসিক কিস্তির টাকা দেন তাহলেও আপনার ক্রেডিট স্কোরের উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

এছাড়াও, গ্যারান্টার যদি অর্থপ্রদান করতে অস্বীকার করেন তাহলে তাঁদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। ঋণ গ্রহণকারী কোনও কারণে শারীরিকভাবে অক্ষম হলে বা মারা গেলে ব্যাঙ্ক বকেয়া ঋণ পুনরুদ্ধার করতে গ্যারান্টারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে।
আপনি যদি হোম লোনের গ্যারান্টার হন, তাহলে আপনি সম্পত্তি বিক্রি করে অর্থ পুনরুদ্ধারের জন্য ব্যাঙ্কের কাছে অনুরোধ করতে পারেন। আপনি যদি ঋণ পরিশোধ করতে অস্বীকার করেন, তাহলে ব্যাঙ্ক আইনি ব্যবস্থাও নিতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, ব্যাঙ্ক তার বকেয়া পাওনা পুনরুদ্ধার করতে সম্পত্তির দখল নিতে পারে। আপনি একবার গ্যারান্টার হয়ে গেলে এই দায়িত্ব থেকে পিছিয়ে যেতে পারবেন না।

গ্যারান্টারের দায়িত্ব থেকে মুক্তি পেতে আপনাকে ব্যাঙ্ক এবং ঋণ গ্রহণকারী উভয়ের কাছেই একটি অনুরোধ করতে হবে। অন্য ঋণ গ্যারান্টার পাওয়া গেলে তবেই ব্যাঙ্ক এটি অনুমোদন করে থাকে। এবার হয়তো আপনি নিশ্চয়ই লোন গ্যারান্টর হওয়ার অসুবিধাগুলি বুঝতে পেরেছেন এবং এটা কীভাবে আপনার CIBIL স্কোরকে প্রভাবিত করতে পারে সেটাই স্পষ্ট হয়েছে। আপনি যদি গ্যারান্টার হন তাহলে আপনার দায়িত্ব কী হবে তা বোঝা গেল, তাই কারও ঋণের গ্যারান্টার হওয়ার আগে সাবধানে সবদিক চিন্তা করেই সিদ্ধান্ত নিন।

Published: May 9, 2024, 13:24 IST

পার্সোনাল ফাইনান্স বিষয়ের সর্বশেষ আপডেটের জন্য ডাউনলোড করুন Money9 App