অনলাইন স্ক্যামের 9 টি ধরণ

বিদ্যুৎ বিল স্ক্যাম ছাড়াও আরও নানাভাবে এই ধরনের প্রতারণার ঘটনা ঘটছে। কখনও কখনও পুরনো বিমা পলিসি রিনিউ করার জন্যও ফোন আসে।

একটি অপরিচিত নম্বর থেকে বারবার সুমেধার কাছে ফোন আসছিল। অবশেষে তিনি যখন ফোনটি রিসিভ করলেন তখন কলার দাবি করলেন তিনি বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে কথা বলছেন। কলার বলেছিলেন যে সুমেধা বিদ্যুৎ বিল পেমেন্ট করা হয়নি। অবিলম্বে তা না মেটালে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে। একথা শুনে সুমেধা উদ্বিগ্ন হয়ে যান। কলার একটি লিঙ্ক পাঠিয়ে তাঁকে বলেন এতে ক্লিক করতে। বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার ভয়ে সুমেধা কলারের দেওয়া লিঙ্কে ক্লিক করেন। তিনি ক্লিক করার পরে একটি অ্যাপ ডাউনলোড করা হয়েছিল। তিনি কলে দেওয়া নির্দেশ ফলো করতে থাকেন। কয়েক মিনিটের মধ্যেই সুমেধার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে 60,000 টাকা তুলে নেওয়া হয়।

বিদ্যুৎ বিল স্ক্যাম ছাড়াও আরও নানাভাবে এই ধরনের প্রতারণার ঘটনা ঘটছে। কখনও কখনও পুরনো বিমা পলিসি রিনিউ করার জন্যও ফোন আসে। কখনও কখনও ফোন কলের মাধ্যমে পুরনো ঋণ পরিশোধ করার জন্য হুমকিও দেওয়া হয়। এই ধরনের প্রতারণা এড়াতে ও তাঁদের সনাক্ত করতে শিখুন। এই ভিডিওতে, 9টি জিনিস আমরা আপনাকে জানাবো যাতে আপনাকে কেউ আপনাকে প্রতারণা করার চেষ্টা করছে কিনা তা নির্ধারণ করতে সহায়তা করবে।

1. এই ধরনের প্রতারণার ক্ষেত্রে প্রায়ই urgency দেখানো হয়। orthat, tarahuro korar kotha bola hoy. যেমন আপনি যদি আপনার বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ না করেন তাহলে আপনার বিদ্যুৎ sonjog কেটে যাবে। আপনি যদি আপনার ব্যাঙ্কের KYC আপডেট না করেন, তাহলে আপনার অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ হয়ে যাবে। এটি করা হয় যাতে আপনি তাড়াহুড়ো করে কাজটি করেন এবং আপনার টাকা দিতে ভুল করেন।

2. আরেকটি বিষয় হল যে ব্যক্তিগত তথ্য চাওয়া হবে। যেমন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের বিবরণ, ডেবিট কার্ডের বিবরণ, প্যান কার্ডের বিবরণ, কার্ডের সিভিভি নম্বর… এরকম কিছু হলে অবিলম্বে একটি সতর্ক হন।

3. থার্ড পার্টি অ্যাপও ডাউনলোড করা হয়। এটিও স্ক্যামের একটি পদ্ধতি। স্ক্যামার আপনাকে একটি কাজ সম্পূর্ণ করতে একটি থার্ড পার্টি অ্যাপ ডাউনলোড করতে বলতে পারে। আপনি যখন অ্যাপটি ইনস্টল করেন, তখন এটি বিভিন্ন অ্যাক্সেসের জন্য জিজ্ঞাসা করে। আপনি অ্যাক্সেস দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তুলে নেওয়া হয়।

4. চাপ দেওয়ার কৌশল এক্ষেত্রে প্রায়ই ব্যবহার করা হয়। আপনার সঙ্গে aggressively কথা বলা হবে এবং এটি দেখানো হবে যে তাঁরা আপনাকে কল করে আপনার উপকার করছে। ঠগরা এও দাবি করে যে তাঁদের কথা শোনা আপনার জন্য সর্বোত্তম উপায় হবে।

5. কলাররা মানুষের মনে আইনি ব্যবস্থা, গ্রেপ্তারের ভয় তৈরি করে। বিষয়টি কুরিয়ার জালিয়াতির মতো। সাইবার স্ক্যামাররা বলবে যে আপনার কুরিয়ার কাস্টমস অফিসারের হাতে ধরা পড়েছে এবং আপনার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিষয়টি মীমাংসা করতে এত টাকা পাঠান। এমন পরিস্থিতিতে মানুষ ভয়ে অনেকসময় টাকাও পাঠান।

6. ভয়ের কৌশল ব্যবহার করা ছাড়াও, কলার আপনাকে প্রলুব্ধ করতে পারে। আপনাকে বলা হতে পারে যে আপনি একটি লটারি জিতেছেন, বাম্পার ডিসকাউন্ট পাচ্ছেন, বা বিনামূল্যে ফ্লাইট টিকিট দেওয়া হচ্ছে৷ এইভাবে, মানুষকে প্রলুব্ধ করা হয়। অজানা লিঙ্কে ক্লিক করার জন্য চাপ তৈরি করা হয় এবং তারপর স্ক্যাম করা হয়।

7. আপনার PIN বা code চাওয়া হতে পারে। কলার আপনাকে OTP শেয়ার করতে বলবে। এটি বেশিরভাগই ঘটে UPI জালিয়াতির ক্ষেত্রে। একবার আপনি কোড শেয়ার করলে আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা চলে যায়।

8. কলার নিজের সম্পর্কে অনেক কিছু প্রকাশ করবে না। আপনি যদি তাঁদের ব্যক্তিগত তথ্য সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করেন, তাঁরা অস্পষ্টভাবে কথা বলতে শুরু করবে। একই কথা বারবার বলবে। এই ধরনের ক্ষেত্রে, আপনার সতর্ক হওয়া উচিত কারণ কলার আপনাকে প্রতারণা করার চেষ্টা করতে পারে।

9. background noise- এর দিকে নজর দিন। বেশিরভাগ কল আসে কল সেন্টার থেকে। সেখানে একসাথে অনেক লোককে কল করা হয়। এই ধরনের ক্ষেত্রে, আপনি কলে background noise শুনতে পারেন। এই ভাবে, আপনি একটি স্ক্যাম সনাক্ত করতে পারেন।

এই বিষয়গুলি মাথায় রাখুন এবং সাইবার জালিয়াতি এড়িয়ে চলুন।

Published: May 2, 2024, 12:26 IST

পার্সোনাল ফাইনান্স বিষয়ের সর্বশেষ আপডেটের জন্য ডাউনলোড করুন Money9 App